ত্রিপুরায় আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় আসবে কংগ্রেসঃ বীরজিৎ সিনহা।

নিজস্ব প্রতিবেদন, ১৪ই মেঃ

মুখ্যমন্ত্রী বদল আসলে ত্রিপুরার মূল সমস্যাগুলি থেকে মানুষের চোখ ঘুরিয়ে দেওয়ার একটা অপপ্রয়াস মাত্র –এমনই মন্তব্য করলেন ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বীরজিৎ সিনহা। নাটকীয় ভাবে আজ বিপ্লব দেব ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী পদে ইস্তফা দেবার পরে মানিক সাহাকে নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে ঘোষণা করে বিজেপি, আর এই নিয়েই বিজেপি’র গোষ্ঠী কোন্দল প্রায় রাস্তায় নেমে এসেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় সামনে আসা এক ভিডিওতে দেখা যায় যে, আজ দলের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষকের উপস্থিতিতেই বিজেপি নেতারা চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি এবং হাতাহাতিতে জড়িয়ে পরেছেন। ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বীরজিৎ বাবু মন্তব্য করেছেন যে, ত্রিপুরায় বেকার সমস্যা চরমে গিয়ে পৌঁছেছে, আইন-শৃঙ্খলার অবনতিও চরমে, যে বিজেপি সরকার বছরে পঞ্চাশ হাজার চাকরি দেবে বলে ক্ষমতায় এসেছিলো-তারা আজ সম্পূর্ণ ব্যর্থ। ত্রিপুরার সাধারণ মানুষ আজ ক্ষোভে ফুঁসছেন, তাই মুখ্যমন্ত্রী বদল করে মানুষের চোখ অন্য দিকে ঘোরাতে মরিয়া হয়েছে বিজেপি, কিন্তু ত্রিপুরার মানুষ বোকা নন বলেও মন্তব্য করেন বীরজিৎ বাবু।

এদিকে মানিক সাহাকে মুখ্যমন্ত্রী করার পরে বিজেপির ভিতরে একদল বিধায়ক বিদ্রোহের পথে হেঁটে দলও ছাড়তে পারেন বলে এ মুহূর্তের সূত্রের খবর। রাজস্থানে কংগ্রেসের চিন্তন শিবিরে অংশ নিয়ে এই মুহূর্তে উপস্থিত আছেন ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বীরজিৎ সিনহা, গুরুত্বপূর্ণ নেতা সুদীপ রায় বর্মণ সহ অন্যান্যরা। সেখান থেকেই বীরজিৎ বাবু আন্দোলন ডট ইন-কে জানিয়েছেন যে, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি কে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করে কংগ্রেসের নেতৃত্বে মানুষের সরকার প্রতিষ্ঠার জন্য ছাত্র-যুব-মহিলা সহ সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে সঙ্গে নিয়ে কোমর বেঁধে নামছে কংগ্রেস।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.