নদীয়ার ভীমপুরে ডায়েরিয়ার মারাত্মক প্রকোপ, মৃত এক–কংগ্রেস নেত্রী সিলভী সাহার উদ্যোগে ঘুম ভাঙলো প্রশাসনের।

নিজস্ব সংবাদদাতা, নদীয়া, ২৮ শে অগাস্টঃ

ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত গোটা গ্রাম, মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লো এক ছাত্র ; কিন্তু প্রশাসনের ঘুম ভাঙলো প্রায় ৭২ ঘন্টা পর। তাও কংগ্রেস নেত্রী সিলভী সাহা গ্রামবাসীদের স্বার্থে স্থানীয় বিডিও এবং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের কাছে দরবার না করলে শেষ অবধি প্রশাসনের কুম্ভকর্ণের ঘুম আদেও কবে ভাঙত, সে বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন নদীয়ার ভীমপুরের মথুরাপুর গ্রামের স্থানীয় জনগণ। গত শুক্রবার মথুরাপুর গ্রামের একের পর এক মানুষ ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন, এক স্কুল পড়ুয়ার মৃত্যুর খবরও সামনে এসেছে। কিন্তু তারপরও স্থানীয় বিডিও এবং স্থানীয় স্বাস্থ্য আধিকারিকের তরফ থেকে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বলেই গ্রামবাসীদের অভিযোগ। গত বিধানসভা নির্বাচনে কৃষ্ণনগর কেন্দ্র থেকে কংগ্রেসের হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা কংগ্রেস নেত্রী সিলভী সাহা অভিযোগ করে বলেছেন, ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত গ্রামে স্রেফ কয়েকজন আশা কর্মী পাঠিয়ে প্রথম চোটে প্রশাসন দায় সেরেছিলো। অন্যদিকে দিশেহারা গ্রামবাসীরা একের পর এক হাসপাতালে ছুটেছেন প্রাণ বাঁচানোর তাগিদে। এইসব খবর পেয়ে রবিবার সকালেই ওই গ্রামে পৌঁছে যান কংগ্রেস নেত্রী সিলভী। গ্রামবাসীদের কাছ থেকে সব শুনে ঘটনাস্থল থেকেই স্থানীয় বিডিওকে ফোন করেন কংগ্রেস নেত্রী। সিলভীকে সামনে পেয়ে গ্রামবাসীরা স্থানীয় নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের উপর তাঁদের ক্ষোভের কথা প্রকাশ করেন। উল্লেখ্য এই তিন দিন ধরে স্থানীয় এম এল এ, এম.পি কিম্বা পঞ্চায়েত প্রধান কারোরই দেখা মেলেনি বলে গ্রামবাসীদের অভিযোগ। অন্যদিকে প্রশাসনের ভরসায় বসে না থেকে সিলভী সাহা কংগ্রেস কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে প্রয়োজনীয় ও.আর.এসের প্যাকেট নিয়ে গ্রামবাসীদের মধ্যে তা বিলি করার কাজে হাত দেন। এরমধ্যেই কংগ্রেস নেত্রীর ফোন পেয়ে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। অ্যাম্বুলেন্স, মেডিকেল টিম গ্রামে এসে পৌঁছেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নদীয়া মথুরাপুর গ্রামে ডায়েরিয়ার মোকাবিলার জন্য কংগ্রেসের উদ্যোগের ফলে প্রশাসনের তরফে মেডিকেল ক্যাম্প বসানো হয়েছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published.