নৈতিকতার কারণে কেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী পদত্যাগ করবেন না? সাংবাদিক সম্মেলনে প্রশ্ন তুললেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী

নিজস্ব সংবাদদাতা, কোলকাতা; ১১ অগাস্টঃ মমতা বন্দোপাধ্যায় ১৯৮৯ সালে লোকসভা ভোটে পরাজিত হবার তিন দিনের ভিতর দিল্লির সরকারি বাসভবন ছেড়ে ছিলেন নৈতিক দায় থেকে, ১৯৯২ সালে নরসিমহা রাও-এর মন্ত্রীসভা ছেড়েছিলেন…

একবার বিদায় দে মাঘুরে আসিহাসি হাসি পরবো ফাঁসিদেখবে ভারতবাসীদশ মাস দশ দিন পরেজন্ম নেবো মাসির ঘরে মাগোতখন যদি চিনতে না পারিস মা,দেখবি গলায় ফাঁসি।————————————–

শান্তনু দত্তচৌধুরী আজ ১১ আগস্ট , বীর বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর আত্মবলিদান দিবস (এই দিনে ১৯০৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি শহীদ হন)।এই দিনে তাঁকে স্মরণ করে এই সংগৃহীত মূল্যবান লেখাটি শ্রদ্ধার সঙ্গে নিবেদন…

ভারত জোড় পদযাত্রা উত্তর ২৪ পরগনায়

নিজস্ব সংবাদদাতা,১১ আগষ্ট : গতকাল উত্তর ২৪ পরগনা ( গ্রামীন) জেলা কংগ্রেসের উদ্যোগে বসিরহাট পিফা থেকে বারাসাত পদযার সূচনা করেন জেলা কংগ্রেসের সভাপতি অমিত মজুমদার।উপস্থিত ছিলেন রাজ্য কংগ্রেসের সভাপতি ডঃ…

বিধাননগরে রাখীবন্ধন উৎসব

নিজস্ব সংবাদদাতা,১১ আগষ্ট : আজ বিধাননগর কংগ্রেসের উদ্যোগে করুনাময়ী বাস মোড়ে রাখীবন্ধন দিবস উদযাপিত হয়।টাউন কংগ্রেসের কর্মী ইন্দ্রাণী ভাট্টাচার্য,সুতপা মিত্র,শিবানী মুন্ডা ও সুদেষ্ণা মন্ডল এলাকায় কর্মরত পুলিশকর্মী, রিকশাচালক, অটোচালক,বাসচালক,দোকানদার ও…

পূর্ব বর্ধমানের কালনায় ভারত জোড় পদযাত্রা

নিজস্ব সংবাদদাতা,১১ আগষ্ট: গতকাল পূর্ব বর্ধমান জেলা কংগ্রেস কমিটির উদ্যোগে সর্বভারতীয় কংগ্রেস কমিটির দেশজুড়ে কর্মসূচি “ভারত জোড় পদযাত্রা” শুরু হল।গতকাল এইজেলার কালনা বিধানসভার নন্দাই গাবতলা থেকে সমুদ্রগড় পর্যন্ত দীর্ঘ ছয়…

একবার বিদায় দে মাঘুরে আসিহাসি হাসি পরবো ফাঁসিদেখবে ভারতবাসীদশ মাস দশ দিন পরেজন্ম নেবো মাসির ঘরে মাগোতখন যদি চিনতে না পারিস মা,দেখবি গলায় ফাঁসি।————————————–অনুগ্রহ করে নিচের লেখাটা পড়ুন।আজ ১১ আগস্ট , বীর বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর আত্মবলিদান দিবস (এই দিনে ১৯০৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি শহীদ হন)।এই দিনে তাঁকে স্মরণ করে এই সংগৃহীত মূল্যবান লেখাটি শ্রদ্ধার সঙ্গে নিবেদন করলাম।♦ক্ষুদিরাম বসুর ফাঁসির সময় দুজন বাঙালী উপস্থিত ছিলেন।একজন হলেন বেঙ্গলী কাগজের সংবাদদাতা ও উকিল উপেন্দ্র নাথ বসু আর অন্যজন হলেন ক্ষেত্রনাথ বন্দোপাধ্যায়। উপেন্দ্র নাথ বসু ক্ষুদিরাম বসুর ফাঁসি নিয়ে সেই সময় একটা লেখা লেখেন, নিচে রইল সেই লেখাটিই…………”মজঃফরপুরে আমাদের উকিলদের একটি ছোট্ট আড্ডা ছিল। আমরা প্রতি শনিবার সেখানে একত্রিত হইয়া গল্প করিতাম, রাজা উজির বধ করিতাম।১লা মে শোনা গেল মজঃফরপুর হইতে ২৪ মাইল দূরে উষা নামক স্টেশন হইতে একটি বাঙ্গালী ছাত্রকে পুলিশ ধরিয়া আনিয়াছে। দৌড়িয়া স্টেশনে গিয়া শুনিলাম পুলিশ ছাত্রটিকে লইয়া সোজা সাহেবদের ক্লাবের বাড়িতে গিয়াছে। সেখানে ম্যাজিস্ট্রেট মিঃ উডম্যান তাহার বর্ণনা লিপিবদ্ধ করিতেছেন।পরদিন সকালে ডিস্ট্রিক ম্যাজিস্ট্রেট মিঃ উডম্যান বাঙালী উকিলদিগকে নিজের এজলাসে ডাকাইয়া পাঠাইলেন। আমাদের মধ্যে প্রবীন উকিল শ্রীযুক্ত শিবচরণ চট্টোপাধ্যায় ছিলেন সরকারী উকিল। তাঁর সঙ্গে আমরা ম্যাজিস্ট্রেটের এজলাসে উপস্থিত হইয়া দেখি, কাঠগড়ায় দাঁড়াইয়া রহিয়াছে একটি ১৫/১৬ বছরের প্রিয়দর্শন বালক। এতোগুলো বাঙালী উকিল দেখিয়া ছেলেটি মৃদু মৃদু হাসিতেছে। কি সুন্দর চেহারা ছেলেটির, রঙ শ্যামবর্ণ কিন্তু মুখখানি এমনই চিত্তাকর্ষক যে দেখিলেই স্নেহ করিতে ইচ্ছা করে।উডম্যান সাহেব যখন ছেলেটির বর্ণনা পড়িয়া আমাদের শোনাইতে লাগিলেন, তখন জানিলাম ছেলেটির নাম ক্ষুদিরাম বসু নিবাস মেদিনীপুর।ক্ষুদিরামের বর্ণনা পড়িতে পড়িতে ক্রোধে উডম্যান সাহেবের বদন রক্তবর্ণ ও ওষ্ঠ কম্পিত হইতেছিল।দায়রায় ক্ষুদিরামের পক্ষ সমর্থনের জন্য কালিদাসবাবুর নেতৃত্বে আমরা প্রস্তুত হইতে লাগিলাম। নির্ধারিত দিনে রঙপুর হইতে দুজন উকিল এই কার্যে সহয়তা করিতে আসিলেন। একজনের নাম সতীশ চন্দ্র চক্রবর্তী।এজলাস লোকারণ্য, তিন-চার জন সাক্ষীর জবানবন্দী, জেরা ও বক্তৃতা শেষ হইলে, ক্ষুদিরামের উপর মৃত্যুদণ্ডের আদেশ হইল।আদেশ শুনিয়া ক্ষুদিরাম জজকে বলিলো, ‘একটা কাগজ আর পেনসিল দিন, আমি বোমার চেহারাটা আঁকিয়া দেখাই। অনেকেরই ধারণাই নাই ওই বস্তুটি দেখিতে কিরকম’।জজ ক্ষুদিরামের এ অনুরোধ রক্ষা করিলেন না।বিরক্ত হইয়া ক্ষুদিরাম পাশে দাঁড়ানো কনস্টেবলকে ধাক্কা দিয়া বলিল, ‘চলো বাইরে’।ইহার পর আমরা হাইকোর্টে আপিল করিলাম। ক্ষীণ আশা ছিল, যদি মৃত্যুদণ্ডের বদলে যাব্বজীবন কারাদণ্ড হয়। জেলে তাহাকে এ প্রস্তাব করিতেই সে অসম্মতি জানালো, বলিল ‘চিরজীবন জেলে থাকার চেয়ে মৃত্যু ভালো’। কালিদাস বোঝাইলেন দেশে এমন ঘটনা ঘটিতেও পারে যে তোমায় বেশিদিন জেলে থাকিতে নাও হইতে পারে। অবশেষে সে সে সম্মত হইল। কলকাতা হাইকোর্টের আপিলে প্রবীন উকিল শ্রীযুক্ত নরেন্দ্র নাথ বসু হৃদয়গ্রাহী বক্তৃতা দিলেন। কিন্তু ফাঁসীর হুকুম বহাল রহিল।১১ আগস্ট ফাঁসির দিন ধার্য হইল।আমরা দরখাস্ত দিলাম যে ফাঁসীর সময় উপস্থিত থাকিব। উডম্যান সাহেব আদেশ দিলেন দুইজন মাত্র বাঙালী ফাঁসির সময় উপস্থিত থাকিতে পারিবে। আর শব বহনের জন্য ১২ জন এবং শবের অনুগমনের জন্য ১২ জন থাকিতে পারিবে। ইহারা কতৃপক্ষের নির্দিষ্ট রাস্তা দিয়া শ্মশানে যাইবে। ফাঁসির সময় উপস্থিত থাকিবার জন্য আমি ও ক্ষেত্রনাথ বন্দোপাধ্যায় উকিলের অনুমতি পাইলাম। আমি তখন বেঙ্গলী কাগজের স্থানীয় সংবাদদাতা। ভোর ছ’টায় ফাঁসী হইবে। পাঁচটার সময় আমি গাড়ির মাথায় খাটিয়াখানি ও সৎকারের অত্যাবশকীয় বস্ত্রাদি লইয়া জেলের ফটকে উপস্থিত হইলাম। দেখিলাম নিকটবর্তী রাস্তা লোকারন্য। সহজেই আমরা জেলের ভিতরে প্রবেশ করিলাম।ঢুকিতেই একজন পুলিশ কর্মচারী প্রশ্ন করিলেন বেঙ্গলী কাগজের সংবাদদাতা কে?আমি উত্তর দিলে হাসিয়া বলিল, আচ্ছা ভিতরে যান।দ্বিতীয় লোহার দ্বার উন্মুক্ত হইলে আমরা জেলের আঙ্গিনায় প্রবেশ করিলাম। দেখিলাম ডানদিকে একটু দূরে প্রায় ১৫ ফুট উঁচুতে ফাঁসির মঞ্চ। দুই দিকে দুই খুঁটি আর একটি মোটা লোহার রড যা আড়াআড়িভাবে যুক্ত তারই মধ্যখানে বাঁধা মোটা একগাছি দড়ি ঝুলিয়া আছে। তাহার শেষ প্রান্তে একটি ফাঁস।একটু অগ্রসর হইতে দেখিলাম ক্ষুদিরামকে লইয়া আসিতেছে চারজন পুলিশ। কথাটা ঠিক বলা হইল না। ক্ষুদিরামই আগে আগে অগ্রসর হইয়া যেন সিপাহীদের টানিয়া আনিতেছে। আমাদের দেখিয়া একটু হাসিল। স্নান সমাপন করিয়া আসিয়া ছিল। মঞ্চের উপস্থিত হইলে তাহার হাত দুইখানি পিছন দিকে আনিয়া রজ্জুবদ্ধ করা হল। একটি সবুজ রঙের টুপি দিয়া তাহার গ্রীবামূল পর্যন্ত ঢাকিয়া দিয়া ফাঁসি লাগাইয়া দেওয়া হইল। ক্ষুদিরাম সোজা হইয়া দাঁড়াইয়া রহিল। এদিক ওদিক একটুও নড়িল না।উডম্যান সাহেব ঘড়ি দেখিয়া একটি রুমাল উড়াইয়া দিলেন।একটি প্রহরী মঞ্চের একপ্রান্তে অবস্থিত একটি হ্যান্ডেল টানিয়া দিল।ক্ষুদিরাম নিচে অদৃশ্য হইয়া গেল।কেবল কয়েক সেকেণ্ড ধরিয়া উপরের দিকের দড়িটা একটু নড়িতে লাগিল।তারপর সব স্থির।কর্তপক্ষের আদেশে আমরা নির্দিষ্ট রাস্তা দিয়া শ্মশানে চলিতে লাগিলাম। রাস্তার দুপাশে কিছু দূর অন্তর পুলিশ প্রহরী দাঁড়াইয়া আছে। তাহাদের পশ্চাতে শহরের অগণিত লোক ভীড় করিয়া আছে। অনেকে শবের উপর ফুল দিয়া গেল। শ্মশানেও অনেক ফুল আসিতে লাগিল। চিতারোহণের আগে স্নান করাইতে মৃতদেহ বসাইতে গিয়া দেখি মস্তকটি মেরুদণ্ড চ্যুত হইয়া বুকের উপর ঝুলিয়া পড়িয়াছে। দুঃখে – বেদনায় – ক্রোধে ভারাক্রান্ত হৃদয়ে মাথাটি ধরিয়া রাখিলাম। বন্ধুগণ স্নান শেষ করাইলেন তারপর চিতায় শোয়ানো হইলে রাশিকৃত ফুল দিয়া মৃতদেহ সম্পূর্ণ ঢাকিয়া দেওয়া হইল। কেবল উহার হাস্যজ্বল মুখখানা অনাবৃত রহিল। দেহটি ভস্মিভূত হইতে বেশী সময় লাগিলো না। চিতার আগুন নিভাইতে গিয়া প্রথম কলসী ভরা জল ঢালিতেই তপ্ত ভস্মরাশির খানিকটা আমার বক্ষস্থলে আসিয়া পড়িল। তাহার জন্য জ্বালা যন্ত্রনা বোধ করিবার মতন মনের অবস্থা তখন ছিল না।আমরা শ্মশান বন্ধুগণ স্নান করিতে নদীতে নামিয়া গেলে পুলিশ প্রহরীগণ চলিয়া গেল। আর আমরা সমস্বরে বন্দেমাতরম বলিয়া মনের ভার খানিকটা লঘু করিয়া যে যাহার বাড়ি ফিরিয়া আসিলাম। সঙ্গে লইয়া আসিলাম একটি টিনের কৌটায় কিছুটা চিতাভস্ম, কালিদাসবাবুর জন্য। ভূমিকম্পের ধ্বংসলীলায় সে পবিত্র ভস্মাধার কোথায় হারাইয়া গিয়াছে ।””ক্ষুদিরাম হওয়া”…….সহজ নয় ।যারা নিজেদের সমস্ত সুখ স্বাচ্ছন্দ্য র যৌবন দেশ এর জন্য…উৎসর্গ করলেন…তাদের কি,আমাদের কাছ থেকে আরেকটু “সম্মান”প্রাপ্য নয় কি…!!! শ্রী শান্তনু দত্ত চৌধুরী)Sent from RediffmailNG on Android

ভারত ছাড়ো আন্দোলন-ব্রিটিশ সরকার ও শ্যামাপ্রসাদঃ

পার্থ মুখার্জী ১৯৪২ সালে পরাধীন ভারতের তৎকালীন বোম্বাই শহরের গোয়ালিয়া ট্যাঙ্ক ময়দানে চলছে সর্ব ভারতীয় কংগ্রেস কমিটির অধিবেশন। এদিকে পুরোদমে চলছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। অপর দিকে ক্রিপস্ মিশন ব্যার্থ। সেই আবহেই…

মালদহের হরিশচন্দ্রপুরে ভারত জোড়ো পদযাত্রা

নিজস্ব সংবাদদাতা,৯ আগষ্ট: আজ কংগ্রেসের ডাকে দেশকে বিক্রি করে দেওয়ার ও সারা দেশে মানুষের মধ্যে সামাজিক বিভাজন সৃষ্টিকারী বিজেপির বিরুদ্ধে স্বাধীনতার ৭৫ তম বর্ষে ভারত জোড়ো পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হল হরিশচন্দ্রপুর…

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কংগ্রেসের আয়োজনে স্বাধীনতার গৌরব যাত্রা

নিজস্ব প্রতিবেদন, পূর্ব মেদিনীপুর ; ৯ অগাস্টঃ ভারতের স্বাধীনতার ৭৫তম বছর উদযাপন উপলক্ষে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কংগ্রেস আয়োজিত “আজাদ কি গৌরব যাত্রা” পিছাবনি লবণ সত্যাগ্রহ স্মারক স্তম্ভ থেকে তমলুক বান…

শিলিগুড়িতে স্বাধীনতার গৌরব যাত্রা কংগ্রেসের। হাঁটলেন সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য।

নিজস্ব প্রতিবেদন, শিলিগুড়ি ; ৯ অগাস্টঃ দেশ জুড়ে কংগ্রেসের ভারতজোড়ো কর্মসূচীর অঙ্গ হিসাবে মঙ্গলবার শিলিগুড়িতে ‘স্বাধীনতার গৌরব যাত্রা’র আয়োজন করলো দার্জিলিং জেলা কংগ্রেস কমিটি। জেলা কংগ্রেস সভাপতি তথা প্রাক্তন বিধায়ক…